স্থগিত হলো করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদ উপ-নির্বাচন

নিজস্ব প্রতিবেদক ।।

করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। সোমবার ৯ অক্টোবর নির্বাচন কমিশন এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে উপ-নির্বাচন স্থগিত ঘোষণা করে। প্রজ্ঞাপনে করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনের পরবর্তি সকল কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের নির্বাচন পরিচালনা-২ এর উপসচিব মো. নূরুজ্জামান তালুকদার স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, “মাননীয় হাইকোর্ট বিভাগ কর্তৃক রিট পিটিশন নং-৭৭১৫/২০১৭ এ বিগত ৭ জুন ২০১৭ তারিখের আদেশে কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদের শূণ্য ঘোষণার বিষয়টি কোন গেজেট প্রজ্ঞাপনে প্রকাশ না করার জন্য মামলার প্রতিপক্ষদের নির্দেশ প্রদান করায় নির্বাচন কমিশন সচিবালয় কর্তৃক বিগত ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে ১৭.০০.০০০০.০৭৯.৪০.০০১.১৭-৪৯৭ নং স্মারকমূলে জারিকৃত শুধুমাত্র কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদের উপ-নির্বাচনের পরবর্তি সকল কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করিতেছে।”

উল্লেখ্য, বিএনপির সমর্থনে নির্বাচিত করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম সুমনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে সম্প্রতি পরিষদের দুজন ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা মোট ১১টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অনাস্থা প্রদান করেন। এরপর স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় সরকার বিভাগ উপজেলা পরিষদ আইন ১৯৯৮ এবং উপজেলা পরিষদ সংশোধনী আইন-২০১১ এর সংশ্লিষ্ট ধারায় এ বছরের ২৩ মে তাকে অপসারণ করে পদটি শূণ্য ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারির পর নির্বাচন কমিশন উপ-নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে আগামী ৪ নভেম্বর উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ করার কথা ছিল। ৮ অক্টোবর রোববার ছিল মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ। নির্ধারিত এই সময়ে মোট ছয়জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেন।

অপসারিত চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম সুমনের আইনজীবী জামিউল হক ফয়সাল জানান, “মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা ছিলো করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ শূন্য হয়েছে মর্মে কোনো গেজেট প্রকাশ করা যাবে না। তা সত্ত্বেও নির্বাচন কমিশন উপজেলা চেয়ারম্যান পদ শূন্য ঘোষণা করে। এর প্রেক্ষিতে আমি প্রধান নির্বাচন কমিশনার বরাবর একটি আইনী নোটিশ প্রেরণপূর্বক হাইকোর্টের আদেশ নজরে আনি। সে আলোকে নির্বাচন কমিশন আইনি নোটিশ আমলে নিয়ে নির্বাচন স্থগিত করেন।”

এর আগে ২৮ সেপ্টেম্বর সাইফুল ইসলাম সুমন সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করেন, “মহামান্য হাইকোর্টের রিট উপেক্ষা করে আমার পদটি শূন্য ঘোষণা ও নির্বাচন কমিশন কর্তৃক নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা উভয়ই আদালত অবমাননা ও আইনের শাসনের পরিপন্থী।”

Similar Posts

error: Content is protected !!