পর্যটনশিল্প : নিকলীর সম্ভাবনা

নাসির উদ্দিন পিটু ।।

প্রকৃতির অপার সৌন্দর্যের লীলাভূমি হাওর কন্যা নিকলী। শীত ও বর্ষায় দু’টি ভিন্নধর্মী রূপে সাজে নিকলী। কোকিলের ডাকে যখন বসন্ত আসে তার রূপও বৈচিত্র্যময়। শীতকালে সবুজ চাদরে আচ্ছাদিত নিকলী, বর্ষায় জলমগ্ন বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে মাঝে মাঝে সবুজের আঁচড়ে গ্রামগুলি যেন জয়নুল-সুলতানের তুলির আঁকা চিত্রপট। দেশ-বিদেশের পর্যটকদের আকৃষ্ট করার মতো অনেক প্রাকৃতিক ও ঐতিহাসিক উপাদান রয়েছে নিকলীতে। শুধু প্রয়োজন কিছু সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ।

কী আছে নিকলীতে : বেড়াতে এসে যারা খোঁজেন ভৌত অবকাঠামো তাদের জন্য রয়েছে মোঘল আমলের গুরই মসজিদ, শতাব্দী প্রাচীন গোসাই আখড়া-গোবিন্দপুর, জমিদার বাড়ি-মোহরকোণা, পাটকল (বিলুপ্ত)-দামপাড়া। যারা প্রকৃতিপ্রেমী তাদের জন্য রয়েছে সমস্ত নিকলী- যেখানে প্রকৃতি উদারভাবে মেলে ধরেছে তার সকল সৌন্দর্য। নিকলী বেড়িবাঁধ এখন পর্যটকদের প্রধান আকর্ষণ। বর্ষায় বেড়িবাঁধের উপর দাঁড়ালে মনে হবে কোন সমুদ্র সৈকত। দু’চোখ জুড়িয়ে যায়। পানি আর পানি। জোৎস্না রাতে বিপুল জলরাশি চকচক করতে থাকে রূপালী আলোর দ্যুতিতে। নৌকাবিলাস নিকলীর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অবলোকন অন্যতম আকর্ষণ। শীতকালে দিগন্ত বিস্তীর্ণ সবুজ সত্যিই নয়নাভিরাম। সোয়াইজনী নদী, ঘোড়াউত্রা নদী ও নরসুন্দা নদী ও নদী আববাহিকা প্রকৃতি পিয়াসীদের বিমোহিত করবে।

যাতায়তের সুব্যবস্থা আছে। রাজধানী ঢাকাসহ দেশের যে কোন জায়গা থেকে নিকলী যাওয়া যায় বাস, ট্রেন অথবা নদীপথে। অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ করতে নৌকা ও শীত মৌসুমে সিএনজিচালিত অটোরিকশা, রিকশা, ব্যাটারিচালিত যান নৌকাও চলে। থাকার জন্য রয়েছে আবাসিক হোটেল ও খাবার হোটেল তো অনেক। নিকলীতে অনেক মৌসুমী ফল ও সবজি ফলে। তবে নিকলীর খিরা, মিষ্টি আলু ও বাদাম বিখ্যাত। নিকলীর কচি নারকেলের (ডাব) পানি খুবই মিষ্টি; খেতে ভুলবেন না। এখানে গজা ও জিলাপী পাওয়া যায়।

যা প্রয়োজন : উন্নত আবাসিক হোটেল ও খাবার হোটেল, পর্যটক ভ্রমণের জন্য ছাউনিওয়ালা পেশাদার নৌকা, পর্যটনে জ্ঞানসম্পন্ন জনবল ও পর্যটকবান্ধব পরিবেশ। নিকলীর মানুষ এমনিতেই অতিথি পরায়ণ। তারপরও নিজেদের স্বার্থে আরো সহনশীল হতে হবে। পর্যটকদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ও সর্বোত্তম সেবা দিতে হবে। তবেই বিকশিত হবে নিকলীর পর্যটন শিল্প। এ শিল্পের আয় ঘরে তুলতে নিকলীবাসীই উদ্যোক্তা হতে পারেন। নয়ত অন্যরাই নিয়ে যাবে এ খাতের সবটুকু। হাওরকন্যা নিকলীর সৌন্দর্য রূপ ছড়িয়ে পড়ুক।