হাটহাজারীতে বিশাল ছড়া এখন ড্রেনে পরিণত

মাহমুদ আল আজাদ, হাটহাজারী প্রতিনিধি ।।

চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে খাল ও ছড়া দখল করায় বর্ষার পানি দোকান ও ঘর বাড়িতে প্রবেশ করছে। গত দুই দিনের বিরামহীন বর্ষণে হাটহাজারীর পৌরসভার বিভিন্ন অঞ্চলের বৃষ্টির পানি ঢুকে পড়েছে। ক্ষতিসাধিত হয়েছে কৃষকদের বিভিন্ন সবজি ক্ষেত। হতাশায় ভুগছে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষি পরিবার। এদিকে হাটহাজারীর বিভিন্ন মার্কেটের দোকানগুলোতে প্রবেশ করেছে নালা, নর্দমার ময়লা ও বৃষ্টির পানি। এতে করে ক্রেতারা ময়লা আবর্জনা ও বৃষ্টির পানিতে শপিং করতে হিমশিম খাচ্ছে।

পৌর এলাকার কাচারি সড়কের গুরুত্বপূর্ণ খালটি আনুমানিক ২০-২৫ ফুট প্রস্থ থাকলেও এ খালটিকে বর্তমানে ৮-১০ ফুটের মতো উপরে স্লাব জমিয়ে ড্রেন আকারে নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রায় কয়েক কোটি টাকা ব্যয়ে এ ছড়াটি ড্রেন আকারে নির্মাণ করা হলেও পর্যাপ্ত পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় বৃষ্টির পানি বাড়িতে ও বিভিন্ন মার্কেটের দোকানে প্রবেশ করছে। স্বাধীনতার পর পৌরসভার সদর এলাকায় কোনো দোকানে বৃষ্টির পানি প্রবেশ করেছে বলে এমন নজির ছিল না। কিন্তু বাজারের কাচারি সড়কের খালটি ড্রেন নির্মাণের নামে ছোট করে ফেলার কারণে পানি নিষ্কাশন হতে না পারায় দোকানে বর্তমানে পানি প্রবেশ করছে। এমনকি পৌরসভার কার্যালয়েও চারদিকে পানিবন্দী হয়ে রয়েছে। পাশাপাশি সরকারি অপর প্রতিষ্ঠান রেজিস্টারি ও পোস্ট অফিসসহ পানিতে বন্দী রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠান স্বাধীনতার পর পানিবন্দী দেখা না গেলেও এবার বন্দী হয়ে পড়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের গাফিলতির কারণে।

এ ছাড়া হাটহাজারী শহরের স্কুল মাঠেও হাঁটু পরিমাণ পানি জমে রয়েছে। দ্রুত পৌরসভার নাভি হিসেবে পরিচিত এই খালটির উপর যে ড্রেন স্লাব দিয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে সেই স্লাব ভেঙ্গে পুনরায় খালের রূপ ফিরিয়ে আনতে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে জোর দাবি উঠেছে। বর্তমানে ড্রেন ভেঙে পুনরায় খালের রূপ ফিরিয়ে না আনলে পৌর সদরের দোকান ও বাড়িঘরে পানি প্রবেশ করবে বলে জানান নগর বিশেষজ্ঞরা। এতে করে বর্ষার বৃষ্টির পানিগুলো যেতে না পারায় বিভিন্ন মার্কেটের দোকানপাটে ঢুকে পড়েছে। জনগুরুত্বপূর্ণ মরা ছড়া এ খালটি হাটহাজারী মডেল থানার পূর্ব পাশ হয়ে কাচারি সড়কের উপর দিয়ে গেলেও মরা ছড়াখালটি আগে পাহাড়ী ঢল ও বাজারের বৃষ্টির পানি যাতায়াত করতে কোনো সমস্যা হতো না।

বর্তমানে খালটি মেরামতের নামে ড্রেন নির্মাণ করার কারণে বৃষ্টির পানি স্বাভাবিকভাবে যেতে পারে না। ফলে বৃষ্টির পানি ঢুকছে পৌরসভার বিভিন্ন বাড়ির উঠানে ও ঘরে। এমনকি মার্কেটের বিভিন্ন দোকানের ভেতরে। হাটহাজারী পৌরসভার এই খালটিকে ড্রেন আকারে নির্মাণ করায় হাটহাজারীবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, কি কারণে কার স্বার্থে বাজারের এ খালটিকে ড্রেন আকারে নির্মাণ করা হচ্ছে! এ খালের উভয় পাশে বহু খালের জায়গা অবৈধভাবে দখল করে বাড়ি ও বহুতল মার্কেট নির্মাণ করা হয়েছে। এ ভবন ও মার্কেটগুলো কর্তৃপক্ষকে স্থানীয় প্রশাসন কিছু বলতে নারাজ। অবৈধভাবে খাল ও ছড়া বেদখলে যাওয়ায় বর্ষার পানি নিষ্কাশন হতে না পারায় ময়লা ও পানি বেয়ে দোকানে কেনাকাটা করতে দুর্ভোগ পৌহাতে হচ্ছে ক্রেতাদের। এতে করে চরম ভোগন্তিতে পড়তে হচ্ছে মহিলা ক্রেতা থেকে শুরু করে সব ধরনের ক্রেতাসাধারণ। এমনকি পানির যন্ত্রণায় হাটহাজারীর বেশ কয়েকটি নামি-দামি মার্কেট ইতিমধ্যে বন্ধ রাখা হয়েছে।

খালের উপরে ড্রেন নির্মাণের কোনো আইন না থাকলেও এ বিশাল খালের উভয় পাড়ে কিছু কিছু অংশে কিছু কিছু জায়গা বাদ দিয়ে উভয় পাড়ে ঢালাই দিয়ে দেওয়াল নির্মাণ করে উপরে স্লাব জমিয়ে এভাবে খালকে ড্রেন করার কোন ইতিহাস বাংলাদেশে নেই। কিন্তু কার স্বার্থে ঐতিহ্যবাহী পুরোনো কাচারী সড়কের মরা ছড়ার প্রস্থের আয়তন ছোট করে হাটহাজারীর জনসাধারণকে জলের মধ্যে ভাসানো হচ্ছে? দ্রুত এ ব্যাপারে সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জরুরি দৃষ্টি কামনা করছেন হাটহাজারী বাসী। অন্যথায় হাটহাজারীর জনগণ সুশীল সমাজ ও ব্যবসায়ীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন শুরু করবে বলে জানা গেছে।