গোসলের ধরন বলে দিতে পারে ব্যক্তিত্ব!

আমাদের নিকলী ডেস্ক ।।

কখনও ভাবনা-চিন্তা করে আবার কখনও না ভেবে কত কিছুই না করি আমরা। অবচেতনে আমরা যা করি তাই আমাদের ব্যক্তিত্বের পরিচায়ক। অনেকেরই ধারণা, হাসিঠাট্টা করা বা কথা বলার পরিমাণই আমাদের ব্যক্তিত্ব কেমন তা বুঝতে সাহায্য করে। কিন্তু জানেন কি? আপনি গোসলের সময় শরীরের কোন অংশ প্রথমে পরিষ্কার করেন, তার উপরেও আপনার ব্যক্তিত্ব নির্ভর করে। অবাক হলেও মনোবিদদের দাবি অনুযায়ী এটাই সত্যি।

গোসল করতে বাথরুমে ঢুকলেন। শুরুতেই প্রথমে মুখ ধুয়ে নেন অনেকেই। আপনি কি তাঁদের দলে? মনোবিদদের মতে, তাহলে আপনি অত্যন্ত হতাশায় ভোগেন। উদ্বিগ্নতার সমস্যাও আপনাকে তাড়া করে বেড়ায় বলেও দাবি মনোবিদদের। যাঁরা গোসলের শুরুতেই মুখ পরিষ্কার করেন, তাঁরা নাকি হাসিঠাট্টাও খুব একটা উপভোগ করতে পারেন না।

বন্ধুমহলে কি আপনার উপস্থিতি আলাদা গুরুত্ব রাখে? আপনি কি নরম হৃদয়ের? প্রশ্নগুলির উত্তর যদি হ্যাঁ হয়, তবে মনোবিদদের মতে আপনি গোসল করতে ঢুকে প্রথমেই বগল পরিষ্কার করেন। যাঁরা এভাবেই গোসল শুরু করতে অভ্যস্ত তাঁরা নাকি ভাল প্রেমিক-প্রেমিকাও হন।

গোসল করতে ঢুকে কি আপনি প্রথমে ঘাড়-কাঁধ পরিষ্কার করেন? তবে আপনি উচ্চকাঙ্খী হতে বাধ্য। মনোবিদদের মতে, এই ধরনের মানুষেরা নাকি তাঁদের স্বপ্নপূরণ না হওয়া পর্যন্ত আর কিছু ভাবতেই পারেন না। নিজেকে উচ্চতার শিখরে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রতিযোগিতাও নাকি এই ব্যক্তিত্বের মানুষের দারুণ পছন্দের।

বাথরুমে ঢুকেই পানি ঢেলে মাথা থেকে পা পর্যন্ত ভিজে চুপচুপে হয়ে গেলেন। এরপর হাতে নিলেন সাবান। অনেকেই রয়েছেন যাঁরা সবার প্রথম বুকেই সাবান মাখেন। তাঁদের এই আচরণই নাকি ব্যক্তিত্বের পরিচয় দিতে পারে। মনোবিদদের মতে, যাঁরা বুকে সাবান মাখেন তাঁরা ত্বক নিয়ে খুব সচেতন হন। শুধু তাই নয়, জীবনের গতি নিয়েও অনেক বেশি সচেতন তিনি।

গোপনাঙ্গ নিয়ে সাধারণত মুখ খুলতে চান না অনেকেই। আচ্ছা সবাইকে নাই বা বললেন, পড়তে তো আর ক্ষতি নেই। জানেন কি, যাঁরা গোসলের শুরুতেই গোপনাঙ্গ পরিষ্কারে অভ্যস্ত তাঁরা নাকি ভীষণ লাজুক হন। এই ধরনের মানুষের লড়াকু মানসিকতাও নাকি প্রশংসনীয়।

বাথরুমে ঢুকেই যাঁরা হাত-পা পরিষ্কার করেন মনোবিদদের মতে তাঁরা নাকি অত্যন্ত নম্র হন। তবে স্পষ্ট ভাষায় নিজের প্রয়োজন বা অপ্রয়োজনের কথা বলতে ভোলেন না তাঁরা।

আপনি আপনার মনের মানুষের জন্য ঠিক কতটা যত্নবান, গোসলের ধরন দেখেই তা বোঝা সম্ভব। কিন্তু ভাবছেন তো কীভাবে তা বোঝা যায়? গোসলের শুরুতেই পিঠ পরিষ্কারের অভ্যাস যাঁদের রয়েছে, তাঁদেরকে আপনি অনায়াসেই প্রেমিক বা প্রেমিকার প্রতি যত্নশীল বলে সার্টিফিকেট দিতেই পারেন।

বর্তমান জীবনযাত্রায় সকলেই ভীষণ ব্যস্ত আমরা। টাইম ম্যানেজমেন্ট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। গোসলের শুরুতে যাঁরা চুল পরিষ্কার করেন, তাঁরা নাকি দক্ষতার সঙ্গে এই কাজটি করে থাকেন। তবে গোসলের শুরুতেই চুল ধোয়ার অভ্যাস না থাকলে যে আপনার টাইম ম্যানেজমেন্টের ক্ষমতা নেই তা নয়।

সূত্র : সংবাদ প্রতিদিন (ভারত)