মাদক ও নারী ব্যবসায়ীদের থেকে মুক্তি চান জারইতলা ইউনিয়নবাসী

সাফায়াত ইসলাম নূরুল, নিজস্ব প্রতিনিধি ।।

নিকলী উপজেলার আঠারবাড়ীয়া গ্রামের অর্ধশতাধিক তরুণ প্রতিবাদী এবং শিক্ষিত যুবক এলাকার একের পর এক ঘটে যাওয়া অপকর্ম সহ্য করতে না পেরে সম্প্রতি হাতেনাতে পেশাদার যৌনকর্মীকে ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এক পর্যায়ে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী চান মিয়ার ছেলে মাদক ব্যবসায়ী কাইয়ুম ও বর্তমান ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ড মহিলা ইউপি সদস্যের স্বামী আশকর আলীর সাথে প্রতিবাদী যুবকদের তুমুল বাকবিতণ্ডা ও ধস্তাধস্তি হয়।

এমনকি সকালে “দেখে নেব” বলেও হুঁশিয়ারি দেন। গত ২৯ মে সকাল আনুমানিক ৮টার সময় প্রতিবাদী যুবক কামরুল হাসান লিগেন ও মতিউর রহমানকে জীবননাশের জন্য চান মিয়ার ছেলে মাদক ব্যবসায়ী কাইয়ুম তাড়া করেন। এ ব্যাপারে এলাকায় ব্যাপকভাবে সমালোচনা চলছে এবং সামাজিকভাবে হস্তক্ষেপের প্রস্তুতি চলছে।

জনগণের তোপের মুখে এক পর্যায়ে যৌনকর্মী মূল ব্যবসায়ীদের নামও প্রকাশ করেন। আশকর আলীসহ বেশ কয়েকজন তাকেসহ বেশ কয়েকজনকে নরসিংদী থেকে নিয়মিত নিয়ে আসেন। ঘটনার সাথে জড়িত এলাকার প্রভাবশালী মহল বলেও উল্লেখ করেন। প্রভাবশালীদের আশ্রয়-প্রশ্রয়প্রাপ্ত হয়ে দীর্ঘদিন ধরে এ ব্যবসা করে হোতারা পার পেয়ে যাচ্ছেন বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

একজন যৌনকর্মী বলেন, আমরা পাই মাত্র দুই হাজার টাকা। দালালরা হাতিয়ে নেয় প্রতি রাতে বিশ হাজার টাকা। আমার মায়ের ক্যান্সার, দায়ে পড়ে কলেজের ছাত্রী হয়েও এই পথে নেমেছি। তথাকথিত ছদ্মবেশী ধনাঢ্য ভদ্রলোকদের কোনো আর্থিক সহযোগিতা পাইনি। স্থানীয় প্রভাবশালী কিছু ব্যক্তি বসে বসে ব্যবসায়ের এ টাকার ভাগ পায় বলে জনশ্রুতি রয়েছে।

সরারচর উসমান গনি মডেল কলেজের প্রভাষক কামরুল হাসান রিগেন বলেন, কিছু সংখ্যক অসাধু লোকজন যুব সমাজকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে। মাদক এবং নারী ব্যবসা আজ আমার এলাকায় মহামারী রূপ ধারণ করেছে। এলাকা হতে অন্যায়ের প্রতিবাদ উঠে গেছে, সমাজ নষ্ট হতে চলেছে।

এলাকার প্রতিবাদী সরাজ আলী বলেন, ইয়াবা ব্যবসার পাশাপাশি আজ যৌনব্যবসার প্রসার ঘটিয়ে কিছু লোক রাতারাতি টাকার মালিক বনে যাচ্ছেন; আর যুব সমাজ হচ্ছে ধ্বংস। এদের মধ্যে বেশিরভাগ স্কুল এবং কলেজপড়ুয়া ছাত্র।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রের মা আক্ষেপ করে বলেন, ছেলেদেরকে কি ঘরে বন্দী করে রাখা সম্ভব? যারা ওই ব্যবসা করে সমাজকে নষ্ট করতে চলেছে তাদের বিরুদ্ধে সামাজিক ও প্রশাসনিক বিচার জরুরি।