ভৈরবে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু, ডাক্তার গ্রেফতার

আমাদের নিকলী ডেস্ক ।।

কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলায় ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় কামরুজ্জামান আজাদ নামে এক চিকিৎসককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (৫ জুলাই ২০১৯) দুপুরে দায়েরকৃত মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়। এর আগে, বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই ২০১৯) রাতে তাকে আটক করা হয়।

গ্রেফতার কামরুজ্জামান আজাদ ভৈরবের ট্রমা জেনারেল (প্রাইভেট) হাসপাতালের চিকিৎসক ছিলেন। রোগী জুয়েল ভৈরব পৌরসভার চন্ডিবের দক্ষিণপাড়া এলাকার আলা উদ্দিনের ছেলে।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা সংবাদমাধ্যমকে জানান, কয়েক বছর আগে দুর্ঘটনায় জুয়েলের এক হাতের হাড় ভেঙে যায়। ফলে অপারেশনের সময় তার হাতের ভেতরে রড ঢুকানো হয়। বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই ২০১৯) রড খুলতে তাকে ট্রমা জেনারেল (প্রাইভেট) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। রাতে জুয়েলকে অপারেশন থিয়েটারে (ওটি) নেয়া হয়। এরপর কয়েক ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও তার জ্ঞান না ফেরায় স্বজনদের সন্দেহ হলে ওটিতে গিয়ে জুয়েলকে মৃত অবস্থায় দেখতে পান।

বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে শতশত লোক হাসপাতালে ভিড় করে। এক পর্যায়ে উত্তেজিত স্বজনরা হাসপাতালে হামলা ও ভাঙচুর চালায়। এ সময় হাসপাতালের ভেতরে অপারেশন করা চিকিৎসক কামরুজ্জামান আজাদকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়।

খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইসরাত সাদমীন ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আনিসুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান। একই সঙ্গে পুলিশ ও র‌্যাব ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে ডা. কামরুজ্জামান আজাদকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে যাওয়া হয়।

ভৈরব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোখলেছুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। মামলার প্রধান আসামি ডা. কামরুজ্জামান আজাদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ব্যাপারে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় জুয়েল মিয়া (৩৪) নামে এক পোলট্রি ব্যবসায়ীর মৃত্যুর ঘটনায় চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। শুক্রবার (৫ জুলাই) কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান এ তদন্ত কমিটি গঠন করেন। শনিবার সকাল ৯টা থেকে ২৪ ঘণ্টার মধ্য কমিটিকে তদন্ত রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহমেদকে প্রধান করে গঠিত তদন্ত কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- কুলিয়ারচর স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. মামুন উর রশিদ, কুলিয়ারচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়র কনসালটেন্ট (সার্জারি) ডা. মো. নিয়ামুল ইসলাম ও ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়র কনসালটেন্ট (অ্যানেসথেসিয়া) ডা. মোহাম্মদ শফিউদ্দিন।

সূত্র : বাংলানিউজ২৪

Similar Posts

error: Content is protected !!