চিকিৎসা : ফ্ল্যাট বিক্রি করবেন ক্রিকেটার মোশাররফ রুবেল!

আমাদের নিকলী ডেস্ক ।।

বিশ্বকাপের উন্মাদনায় অনেকে হয়তো ভুলেই গিয়েছিল মোশাররফ রুবেলের কথা। ব্রেইন টিউমারে আক্রান্ত জাতীয় দলের সাবেক এই ক্রিকেটার এখনও লড়ে যাচ্ছেন মৃত্যুর সঙ্গে। হাসপাতালে থেকেই তিনি নিয়মিত খোঁজ রেখেছেন বিশ্বকাপে জাতীয় দলের পারফর্মেন্সের। কিন্তু তার খোঁজ কেউ রাখেনি। সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রুবেল এখন অর্থনৈতিক সংকটে ভুগছেন। জীবন বাঁচানোর জন্য নিজের ফ্ল্যাটটাও বিক্রি করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সাবেক এই স্পিনার!

জটিল রোগে আক্রান্ত রুবেলের চিকিৎসার পেছনে ইতিমধ্যেই ১ কোটি টাকা ব্যয় হয়ে গেছে। টিউমার অপসারণ শেষে এখন চলছে কেমোথেরাপি। মোট ৩০ রাউন্ড রেডিওথেরাপি এবং ৫০ রাউন্ড কেমোথেরাপি দিতে হচ্ছে রুবেলকে। এর মধ্যে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ৬ সার্কেলের কেমোথেরাপি দিতে হবে। যার জন্য আরও প্রয়োজন ৫০ লাখ টাকা। এই বিপুল ব্যয় বহনের জন্য নিজেই সোমবার (৮ জুলাই ২০১৯) ফেসবুকে নিজের ফ্ল্যাট বিক্রির ঘোষণা দিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন রুবেল। নিজের সদ্য কেনা ১৫৫০ স্কয়ার ফুটের ফ্ল্যাটটি বিক্রি করে দিতে চাচ্ছেন।

ফেসবুকে তিনি লিখেছেন, ‘কেমোথেরাপির সঙ্গে এখন লড়াই করছি। আমার চিকিৎসার জন্য ইতোমধ্যে ১ কোটি টাকার মতো খরচ করে ফেলেছি। বাকি ৬ সার্কেল কেমোথেরাপির জন্য আরও ৫০ লাখ টাকা প্রয়োজন। এ কারণে জরুরিভাবে আমার ফ্ল্যাটটি বিক্রি করে দিতে চাই (১৫৫০ স্কয়ার ফুট)। যদি কেউ আগ্রহী হন, তাহলে আমার সঙ্গে ইনবক্সে যোগাযোগ করুন। এবং অবশ্যই আপনার দোয়াও প্রয়োজন। কারণ, এখনও আমি বেঁচে আছি কেবল আপনাদের দোয়ায়। আল্লাহ আমাদের সব অপরাধ ক্ষমা করুন। ধন্যবাদ।’

উল্লেখ্য, গত মার্চের শেষের দিকে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে মোশাররফ রুবেলের ব্রেন টিউমার অপসারণ করা হয়। প্রাথমিকভাবে বলা হয়েছিল, এতে ক্যান্সারের জীবানু নেই। কিন্তু পরে সেই দুর্ভাগ্যই বরণ করতে হয় রুবেলকে। ডাক্তাররা তাকে ৩০টি রেডিওথেরাপি এবং ৫০টি কেমোথেরাপি নিতে বলেছেন। এজন্য তিন সপ্তাহ অন্তর তাকে সিঙ্গাপুর যেতে হবে। প্রায় ৬ মাসের এই যুদ্ধের জন্য বিসিবির পক্ষ থেকে কিছু সহায়তার আশ্বাস মিলেছে। তবে সেটা যথেষ্ট না হওয়ায় মাথার ওপরের ছাদটুকু হাতছাড়া করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মোশাররফ রুবেল।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের জাতীয় দলের ক্রিকেটার মোশাররফ হোসেন রুবেলের বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর উপজেলার পৌরশহরের পূর্ব চন্দ্রগ্রামে।

সূত্র : কালের কণ্ঠ

Similar Posts

error: Content is protected !!