বাজিতপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ ৪ হাজার মানুষ পানিবন্দী

মহিউদ্দিন লিটন, বাজিতপুর ।।

কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার সরারচর ইউনিয়নের ৪১নং ভাণ্ডা মজলিশপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ পার্শ্ববর্তী এলাকার ৩-৪ হাজার বাসিন্দা গত ৬-৭ দিন ধরে একাধারে ভারী বৃষ্টি হওয়ার কারণে ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় বিপর্যস্ত অবস্থায় আছেন।

জানা যায়, ভাণ্ডা মজলিশপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৮জন শিক্ষক বৈরী আবহাওয়া থাকা সত্ত্বেও স্কুল করিডোরে হাঁটু পানি ভেঙ্গে ৩১০ জন শিক্ষার্থীকে শিক্ষা দিতে ওয়াকেবহাল অবস্থায় আছেন। এছাড়া স্কুলের ৪২ শতাংশ জায়গার বাইরে পার্শ্ববর্তী বাড়িঘরের লোকজন তাদের ড্রেন না থাকার কারণে স্কুলে পানি জমে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের স্কুলে আসতে এ দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে।

অন্যদিকে, সরারচর ছাড়াও নদীর পার্শ্ববর্তী এলাকার আছানপুর, বোয়ালী, শিবপুর, চেংগাহাটি, লালখারচর, দয়ারামপুর, বাবুনগরসহ কয়েকটি গ্রামের মানুষ নদীভাঙ্গনের কবলে আতঙ্কিত অবস্থায় রয়েছেন। তাদের খবর কেউ রাখে না।

ভাণ্ডা মজলিশপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুহাম্মদ নয়ন মিয়া জানান, স্কুল করিডোরে পানি ভেঙ্গে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা নিয়মিত ক্লাস করছেন। বাজিতপুর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ আজিজুল ইসলাম তালুকদার জানান, যেসব এলাকায় নদী ভাঙ্গনে কবলিত হয়েছে সেই সব এলাকার জনগণ সরকারি কোষাগার থেকে সহায়তা পাবেন বলে উল্লেখ করেন।