পুলিশের অস্ত্র লুটের মামলায় নিকলীর ৩ গ্রাম পুরুষশূন্য

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার সিংপুরে পুলিশের অস্ত্র লুটের ঘটনায় মামলা হয়েছে। এ মামলায় গ্রেপ্তার হওয়ার আতঙ্কে ছয় দিন ধরে ইউনিয়নের খদরপাড়া, নতুনপাড়া ও উত্তরপাড়া গ্রামের পুরুষেরা গ্রাম ছেড়েছেন। ২৩ এপ্রিল এ ইউনিয়নে ভোট হয়।

গতকাল বুধবার দুপুরে সরেজমিনে দেখা যায়, তিনটি গ্রামেই কোনো পুরুষ নেই। এ বিষয়ে খদরপাড়ার হাওয়া বেগম, বেদেনা বেগম, নতুনপাড়ার আমেনা বেগম, উত্তরপাড়ার রাবিয়া বেগম, লিজা বেগম, পালিমা আক্তারসহ কয়েকজন নারীর সঙ্গে কথা হয়। তাঁরা সবাই একই ধরনের কথা বলেন। হাওয়া বেগম বলেন, ‘ঘটনার পর থেকে প্রতিদিনই পুলিশ আসে। গ্রেপ্তারের ভয়ে বাড়ির পুরুষেরা তাই পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। বাড়িতে পুরুষ না থাকায় হাওরের পাকা বোরো ধান কেটে আনতে পারছি না। যেভাবে নদীর পানি বাড়ছে, মনে হয় কয়েক দিন থাকলে ওই ধান পানিতে তলিয়ে যাবে।’ খদরপাড়ার সাফির উদ্দিন (৭০), শাহাব উদ্দিন (৬০) এবং নতুনপাড়ার আবদুল হামিদ বলেন, ‘ঘটনা ঘটিয়েছেন কয়েকজনে। কিন্তু এখন ভুগছি আমরা তিন গ্রামের মানুষ।’

পুলিশ জানায়, ২৩ এপ্রিল সিংপুর ইউনিয়নের ভাটিবরাটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য পদে ৬৯৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন মো. আজিজুল হক। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো. ইসহাক মিয়া ৬২০ ভোট পান। ওই দিন সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে ফলাফল ঘোষণা করে নির্বাচনী সরঞ্জামসহ প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ও পুলিশ সদস্যরা ভাটিবরাটিয়ার রাজঘাটে ট্রলারে উঠছিলেন। সে সময় পরাজিত সদস্য প্রার্থী ইসহাক মিয়ার নেতৃত্বে তাঁর লোকজন পুলিশের ওপর হামলা চালায়। তারা প্রিসাইডিং কর্মকর্তার কাছ থেকে ব্যালট ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশ ৩৫টি ফাঁকা গুলি ছোড়ে। কিন্তু একপর্যায়ে ইসহাক মিয়ার সমর্থকেরা আবারও সংগঠিত হয়ে পুলিশের ওপর হামলা করে একটি শটগান ছিনিয়ে নিয়ে যায়। পরে উত্তরপাড়ায় অভিযান চালিয়ে ছিনিয়ে নেওয়া অস্ত্র ও গুলি ইসহাক মিয়ার বসতঘর থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। সে ঘটনায় পুলিশ সরোয়ার (৩৫) নামের একজনকে গ্রেপ্তার করে। এ ছাড়া ভৈরব শহর ফাঁড়ির উপ-সহকারী কর্মকর্তা (এসআই) আবুল কালাম বাদী হয়ে ইসহাককে প্রধান আসামি করে ১২ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরও ৩০-৩৫ জনের বিরুদ্ধে নিকলী থানায় মামলা করেন।

নিকলী থানার ওসি মগবুল হোসেন মোল্লা গতকাল বুধবার বলেন, নিরপরাধ কাউকে হয়রানি করা হবে না। শুধু প্রকৃত দোষী ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনা হবে।

প্রথম আলো, ২৮ এপ্রিল

Similar Posts

error: Content is protected !!