নিকলীতে দুই শিক্ষককে মারধরের ঘটনায় মামলা

বিশেষ প্রতিনিধি ।।

নিকলীতে একটি উচ্চ বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষককে পিটিয়ে ও ছুরিকাঘাতে আহতের ঘটনায় তিন ছাত্রের নাম ও অজ্ঞাত কয়েকজনের কথা উল্লেখ করে বৃহস্পতিবার মামলা দায়ের করেছে এক শিক্ষকের বড়ভাই মো. জামাল উদ্দিন।

জানা যায়, নিকলী উপজেলার কারপাশা ইউনিয়নের মজলিশপুর শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক (কৃষি) মো. হাবিবুর রহমান হাবিব (৩০) মঙ্গলবার (৬ নভেম্বর ২০১৮) সন্ধ্যায় ওই বিদ্যালয়ের খণ্ডকালীন শিক্ষক মো. নোমানের (২৭) বাড়ি নিকটবর্তী কারপাশা গ্রামে বেড়াতে যান। সন্ধ্যায় ফেরার পথে নোমান এগিয়ে দিতে আসেন হাবিবকে।

নিকলী-করিমগঞ্জ সড়কের বদরপুর সীমানায় দুই শিক্ষক রাস্তার পাশে বসে আলোচনা করছিলেন। এ সময় বিদ্যালয়টির সাবেক ও বর্তমান কয়েক ছাত্র রড, ছুরি নিয়ে তাঁদের ওপর চড়াও হয়। রডের আঘাতে হাবিবুর রহমান হাবিবের পিঠে ফোলা জখম, হাত ভেঙ্গে যায়। ছুরির আঘাতে নোমানের থুতনিসহ একাধিক জায়গা কেটে যায়।

সন্ধ্যার আলো-ছায়ায় শিক্ষকদ্বয় তাদের সাবেক ও বর্তমান ছাত্রদের মধ্যে এসাব উদ্দিনের পুত্র অংশু (১৮), জহুর আলীর পুত্র আরমান (১৭), জালালুদ্দিনের পুত্র সুলাইমানকে (১৮) চিনতে পারেন। রাতেই আহতদের নিকলী উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক নোমানের থুতনিতে ৬টি সেলাই দিয়ে উন্নত চিকিৎসায় কিশোরগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।

মামলার বিবরণে ২০১৭ ও চলতি সালে এসএসসির টেস্ট পরীক্ষায় অসদুপায়ের সুযোগ না দেয়ায় সাবেক ও বর্তমান বখাটে ছাত্রের আক্রমণের কারণ উল্লেখ করা হয়। নিকলী থানার ওসি মো. নাসির উদ্দিন ভূইয়া মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

Similar Posts

error: Content is protected !!